খেলাধুলা সংবাদ

খেলাধুলা সংবাদ
April 06 15:54 2017

নড়াইলে মানববন্ধন ‘ফিরে আস মাসরাফি’  

নড়াইল প্রতিনিধি : বাংলাদেশের সীমিত ওভার ক্রিকেটের অণুপ্রেরণাদায়ী অধিনায়ক মাশরাফি বিন মুর্তজাকে টি-২০ অবসরের সিদ্ধান্ত থেকে সরে আসার অনুরোধ জানিয়েছে মাশরাফি ভক্তরা। মাশরাফির নিজ জেলা নড়াইলের ক্রীড়াপ্রেমীরা মাশরাফিকে পুনরায় টি-২০ অধিনায়ক হিসেবে দলে ফিরিয়ে আনার জন্য প্রয়োজনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন। বৃহস্পতিবার শহরের রূপগঞ্জ প্রজন্ম চত্বর, নড়াইল চৌরাস্তা, নড়াইল টেকনিক্যাল স্কুল এবং কলেজ-এর সামনে অনুষ্ঠিত মানববন্ধনে ‘ক্রিকেটপ্রেমী নড়াইল বাসী’ ব্যানারে আয়োজিত দীর্ঘ মানববন্ধনে এলাকার বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষ অংশগ্রহণ করেন। মানববন্ধনে উপস্থিত ছিলেন নড়াইল পৌরসভার মেয়র জাহাঙ্গীর হোসেন বিশ্বাসসহ মাশরাফির ভক্ত বিভিন্ন স্কুলের শিক্ষক-শিক্ষার্থীবৃন্দ। মানববন্ধনে বক্তারা বলেন, মাশারফি আমাদের জাতীয় দলের সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ অধিনায়ক। বারবার ইনজুরি সত্ত্বেও মাশরাফি যেভাবে ফিরে এসে দেশের জন্য খেলেছে তার এরকম বিদায় দেশের ক্রীড়ামোদী কেউই মানতে পারছে না। বাংলাদেশের ক্রিকেটকে দেয়ার মত অনেকেই কিছুই মাশরাফির অনেক কিছুই বাকী আছে। মাশরাফিকে আবারো টি-২০ ক্রিকেটে সম্মানে ফিরিয়ে আনতে হবে। তারা বলেন, মাশরাফির অবসরের সিদ্ধান্তের পেছনে কলকাঠি নাড়ছে তৃতীয় কোন ব্যক্তি। বাংলাদেশের ক্রিকেট যখন বিশ্বক্রিকেটে পরাশক্তি হিসেবে দাঁড়াচ্ছে। দল যখন একটি স্থিতিশীল অবস্থায় এসেছে তখন বাংলাদেশের ক্রিকেট নিয়ে নতুন করে ষড়যন্ত্র শুরু হয়েছে। মানববন্ধন থেকে বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় শহীদ মিনার অভিমুখে আলোক মিছিলের ঘোষণা দেয়া হয়েছে। মাশরাফি ফিরে না আসা পর্যন্ত বিভিন্ন কর্মসূচি চলমান থাকবে বলেও তারা জানান। মানববন্ধন চলাকালে বক্তব্য রাখেন নড়াইল জেলা ক্রীড়া সংস্থার কোষাধ্যক্ষ আব্দুর রশীদ মন্নু, ব্যবসায়ী গিয়াস উদ্দিন খান ডালু, সাংস্কৃতিক সংগঠক আসলাম খান লুলু, সিনিয়র সাংবাদিক কার্তিক দাস, জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক আশরাফুজ্জামান মুকুলসহ অনেকে।

যেমন ছিলো মাশরাফির টি-টোয়েন্টি অধ্যায়
স্পোর্টস রিপোর্টার : ‘আমি কখনই টি-টোয়েন্টি ক্রিকেট উপভোগ করিনি’- এই ফরম্যাটকে বিদায় বলার ম্যাচ শেষে সংবাদ সম্মেলনে মন্তব্য করেছিলেন মাশরাফি বিন মুর্তজা। কিন্তু পরিসংখ্যান দেখলে মনেই হতে পারে এমন মন্তব্য যেন অভিমান আর পারিপার্শ্বিক ‘চাপ’ থেকে বলেছেন বাংলাদেশ অধিনায়ক। শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে কলম্বোয় দুই ম্যাচ সিরিজের প্রথম টি-টোয়েন্টিতে টস করতে নেমে মাশরাফি হুট করেই ঘোষণা দেন চলতি সিরিজের পর আর ২০ ওভারের ম্যাচে খেলবেন না। টেস্ট-ওয়ানডের মতো টি-টোয়েন্টি ফরম্যাটেও ঝলমলে পারফরম্যান্স ছিলো মাশরাফির। বৃহস্পতিবারের আগ পর্যন্ত সবমিলিয়ে ৫৩ ম্যাচে মাঠে নেমেছেন এই ক্রিকেটার। ২০০৬ সালে বাংলাদেশের প্রথম টি-টোয়েন্টি ম্যাচ দিয়ে এই ফরম্যাটে অভিষেক হয় তার। ওই ম্যাচে ২২ বলে ব্যাট হাতে ৩৬ রানের ঝড়ো ইনিংস খেলেছিলেন মাশরাফি। টি-টোয়েন্টিতে ওটাই সর্বোচ্চ ব্যক্তিগত রানের ইনিংস তার। সেবার বল হাতে নিয়েছিলেন ২ উইকেট। জিতেছিলেন ম্যাচসেরার পুরস্কার। টি-টোয়েন্টিতে ডানহাতি এই পেসারের রয়েছে ৪১ উইকেট। ব্যাট হাতে তুলেছেন ৩৭৭ রান। সেরা বোলিং ফিগারটি আয়ারল্যান্ডের বিপক্ষে। ২০১২ সালে ওই ম্যাচে ১৯ রান দিয়ে চার উইকেট নিয়েছিলেন মাশরাফি। পরিসংখ্যান বলছে, এই ফরম্যাটে তার নেতৃত্বে খারাপ করেনি বাংলাদেশ। সর্বশেষ ২০১৬ সালে তার অধিনায়কত্বেই ঘরের মাঠে এশিয়া কাপ টি-টোয়েন্টির ফাইনালে জায়গা করে নেয় বাংলাদেশ। শেষ পর্যন্ত ভারতের বিপক্ষে হার মেনে রানার আপ হয়েই সন্তুষ্ট থাকতে হয়েছে লাল-সবুজ জার্সিধারীদের। বাংলাদেশকে সবচেয়ে বেশি ২৭ ম্যাচে নেতৃত্ব দিয়ে সফলতার হিসাবে (৩৪.৬১%) দ্বিতীয় অবস্থানে রয়েছেন মাশরাফি। তার নেতৃত্বে ২৭ ম্যাচে ৯ টিতে জিতেছে বাংলাদেশ, হার ১৭ ম্যাচে। ফলাফল আসেনি একটি ম্যাচে। সফলতায় সবার উপরে থাকা মুশফিকের নেতৃত্বে ২৩ ম্যাচে ৮ জয়, ১৪ হার ও একটিতে ফলাফল না আসায় সফলতার হার ৩৬.৩৬%। তবে মাশরাফির হাত ধরে টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটে পাকিস্তান-শ্রীলঙ্কার মতো বড় দলগুলোর বিপক্ষে জয়ও পেয়েছে বাংলাদেশ। যে ফরম্যাটেই খেলেছেন, নিজেকে মেলে ধরার পাশাপাশি দলকে আগলে রেখেছেন পুরোটা সময়।

মাসরাফিকে টাইগারদের জয় উপহার

স্পোর্টস রিপোর্টার : চমকপ্রদ এক জয় দিয়ে শেষ হলো বাংলাদেশ টি-২০ ক্রিকেটে মাশরাফি বিন মুর্তজা অধ্যায়। গতকাল শ্রীলঙ্কার কলম্বোতে প্রেমাদাসা স্টেডিয়ামে শেষবারের মতো মাশরাফির নেতৃত্বে টি-২০ খেলতে মাঠে নামে বাংলাদেশ দল। তবে জয়-পরাজয় ছাপিয়ে মাশরাফির বিদায়ই মুখ্য হয়ে ওঠে খেলায়। লাল-সবুজ জার্সিতে এক সমুদ্র বিষাদ নিয়ে খেলতে নামলেও প্রিয় অধিনায়ককে জয় দিয়ে সম্মানিত করার উদ্যম বাসনা ছিল টাইগারদের মনে। সেই সাথে সিরিজ বাঁচানোর লক্ষ্যতো ছিলোই। বলাবাহুল্য সে প্রচেষ্টায় ষোল আনা সাফল্যের মালা গলায় নিয়ে টি-টোয়েন্টিকে বিদায় জানালেন নড়াইল এক্সপ্রেস মাসরাফি। মাসরাফির বিদায়ী ম্যাচে ৪৫ রানে এ জয়ে টেস্ট ও ওয়ানডের মত টি-টোয়েন্টি সিরিজও ১-১এ সমতার মাধ্যমে শেষ হলো। টি-টোয়েন্টিতে বাংলাদেশের অভিষেকের দিনই মাশরাফি ক্যাপ পেয়েছিলেন। ওই ম্যাচে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে ব্যাটে-বলে অসাধারণ  নৈপুণ্য দেখিয়ে বাংলাদেশকে জয় উপহার দিয়েছিলেন মাশরাফি। নিজের শেষ টি-টোয়েন্টি ম্যাচেও তেমন এক উপহার পেলেন এই ক্রিকেট বীর। এতদিন বীরের মতো বাংলাদেশকে সামনে থেকে নেতৃত্ব দিয়েছেন মাশরাফি। বিদায়ী ম্যাচ এ জয় সতীর্থদের কাছ থেকে বড় অর্জনই হয়ে থাকবে তার ক্যারিয়ারে। ক্যারিয়ারের শেষ টি-টোয়েন্টি খেলতে নামা টাইগারদের দলপতি মাশরাফি টস জিতে আগে ব্যাটিংয়ের সিদ্ধান্ত নেন। নির্ধারিত ২০ ওভারে বাংলাদেশ ৯ উইকেট হারিয়ে তুলে ১৭৬ রান। জবাবে মোস্তাফিজ-সাকিবের দুরন্ত বলে ১৮ ওভারে ১৩১ রানে অল-আউট হয় শ্রীলঙ্কা। শুরুতে ব্যাটিংয়ে নেমে সৌম্য সরকার আর ইমরুল কায়েস ৭১ রান তুলে ভাল সূচনা করেন। ইনিংসের সপ্তম ওভারে গুনারতেœর বলে ফিরতি ক্যাচ দিয়ে ফেরেন সৌম্য(৩৪)। ইমরুল করেন ৩৬ রান। দলীয় ৭৮ রানের মাথায় দ্বিতীয় উইকেট হারায় বাংলাদেশ। ১২৪ রানের মাথায় তৃতীয় উইকেটের পতন হয়। ১৯ রান করে সঞ্জয়ার বলে বোল্ড হন সাব্বির। সাকিবের সঙ্গে ৪৬ রানের জুটি গড়েন তিনি। সাকিব আল হাসান করেন ৩৮ রান আর মোসাদ্দেক হোসেন সৈকত ১৭ রান। দলীয় ১৫২ রানের মাথায় বাংলাদেশ পঞ্চম উইকেট হারায়। ইনিংসের ১৯তম ওভারে বোলিং আক্রমণে আসেন মালিঙ্গা। সেই ওভারের তৃতীয়, চতুর্থ আর পঞ্চম বলে আউট করেন মুশফিক, মাশরাফি এবং মিরাজকে। মুশফিক ৬ বলে ১৫ রান করে বিদায় নেন। মাশরাফি আর অভিষিক্ত মিরাজ কোনো রান না করেই ফেরেন। মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ ৪ রানে অপরাজিত থাকেন। ইনিংসের শেষ বলে রান আউট হন সাইফউদ্দিন (৬)। শ্রীলঙ্কার হয়ে ৪ ওভারে ৩৪ রানে হ্যাটট্রিকের কল্যাণে তিনটি উইকেট পান মালিঙ্গা। টাইগারদের ছুঁড়ে দেয়া ১৭৭ রানের টার্গেটে ব্যাট করতে নেমে শুরুতেই সাকিবের জোড়া আঘাতে বিপদে পড়ে শ্রীলঙ্কা। ইনিংসের প্রথম ওভারেই সাকিব ফিরিয়ে দেন কুশল পেরেরাকে(৪)। ইনিংসের তৃতীয় ওভারে সাকিবের দুর্দান্ত ডেলিভারিতে ফেরেন দিলশান মুনাবিরা(৪)। দলীয় ১৯ রানেই দুই উইকেট হারায় লঙ্কানরা। এরপর উইকেট শিকারে যোগ দেন মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ। ইনিংসের পঞ্চম ওভারে উপুল থারাঙ্গাকে(২৩) ফেরান তিনি। দলীয় ৪০ রানে তৃতীয় ও চতুর্থ উইকেটের পতন হয় লঙ্কানদের। পরের ওভারের প্রথম বলেই মোস্তাফিজ ফিরিয়ে দেন গুনারতœকে। প্রথম বলে উইকেট নেয়ার পরের বলেই তিনি ফিরিয়ে দেন সিরিবর্ধানেকে। ৬ষ্ট উইকেটে পেরেরা-কাপুগেদারা ৫৮ রানে ঘুরে দাঁড়াবার চেষ্টা করলেও আবারো আঘাত হানেন সাকিব। দলীয় ৯৮ রানে তার বলে স্ট্যাম্পিংয়ের ফাঁদে পড়ার আগে পেরেরা করেন ২৭ রান।  দলীয় ১২৩ রানে মোস্তাফিজের বলে ৫০ রান করা কাপুগেদারার বিদায় যেন শ্রীলঙ্কার সব সম্ভাবনা শেষ করে দেয়। ১৮ ওভারে ১৩১ রানে শেষ হয় শ্রীলঙ্কার ইনিংস। বাংলাদেশের মোস্তাফিজ ৪ উইকেট নিয়ে আবারো স্বমহীমায় ফিরে আসার ইঙ্গিত দেয়। সাকিব ৩টি এবং মাসরাফি, মাহমুদুল্লাহ ও সাইফুদ্দিন নেয় ১টি করে উইকেট।
বাংলাদেশ একাদশ : ইমরুল কায়েস, সৌম্য সরকার, সাব্বির রহমান, সাকিব আল হাসান, মুশফিকুর রহিম (উইকেটরক্ষক), মোসাদ্দেক হোসেন সৈকত, মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ, মাশরাফি বিন মর্তুজা (অধিনায়ক), মোহাম্মদ সাইফউদ্দিন, মুস্তাফিজুর রহমান ও মেহেদি হাসান মিরাজ।
শ্রীলঙ্কা একাদশ : কুসল পেরেরা (উইকেটরক্ষক), দিলশান মুনাবিরা, উপুল থারাঙ্গা (অধিনায়ক), চামারা কাপুগেদারা, আসেলা গুনারতেœ, মিলিন্দা সিরিবর্ধানে, থিসারা পেরেরা, সেকুজে প্রসন্ন, নুয়ান কুলাসেকারা, লাসিথ মালিঙ্গা ও ভিকুম সঞ্জয়া।

টি-টোয়েন্টিতে মালিঙ্গার হ্যাটট্রিক

স্পোর্টস রিপোর্টার : বাংলাদেশের টি-টোয়েন্টির ফেরিওয়ালা যেমন বলা হয় সাকিব আল হাসানকে, তেমনি শ্রীলঙ্কায় লাসিথ মালিঙ্গাকে। তার উপরই নির্ভর করে দলটি। আর কেন নির্ভর করে তা আরও একবার বুঝিয়ে দিলেন এ লঙ্কান। বাংলাদেশের বিপক্ষে টানা তিন বলে তিনটি উইকেট নিয়ে হ্যাটট্রিক পূরণ করেছেন। তবে শেষ দিকে দারুণভাবে ঘুরে দাঁড়ায় শ্রীলঙ্কা। মালিঙ্গার হাত ধরেই ম্যাচে ফেরে দলটি। নিজের শেষ ওভারে (দলের ১৯তম ওভারে) তুলে নেন মুশফিকুর রহীম, মাশরাফি বিন মর্তুজা ও মেহেদী হাসান মিরাজকে। টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটে এটা পঞ্চম হ্যাটট্রিকের ঘটনা। এর আগের চারটিতেও রয়েছেন একজন শ্রীলঙ্কান। থিসারা পেরেরা। ভারতের বিপক্ষে রাঁচিতে ২০১৫-১৬ মৌসুমে হার্দিক পান্ডিয়া, সুরেশ রায়না এবং যুবরাজ সিংকে আউট করে হ্যাটট্রিক করেন তিনি। আগের তিনটি হ্যাটট্রিক করেন ব্রেট লি, জ্যাকব ওরাম এবং টিম সাউদি। টি-টোয়েন্টিতে সর্বপ্রথম হ্যাটট্রিকম্যান হলেন ব্রেট লি। লাসিথ মালিঙ্গা একমাত্র বোলার, যার ওয়ানডে ক্রিকেটে রয়েছে তিনটি হ্যাটট্রিক। যার দুটি আবার বিশ্বকাপ ক্রিকেটে। আবার তিনিই একমাত্র বোলার, যনি আন্তর্জাতিক ক্রিকেটের যে কোনো ফরম্যাটে টানা চার বলে চারটি উইকেট নিয়েছিলেন। উল্লেখ্য, চলতি শ্রীলঙ্কা সফরে এর আগে ওয়ানডে সিরিজে হ্যাটট্রিক করেছিলেন বাংলাদেশের তাসকিন আহমেদ।

কাউন্সিলর গোল্ডকাপ ক্রিকেটের কোঃ ফাইনালে যশোর
স্পোর্টস রিপোর্টার : মহান বিজয় দিবস উপলক্ষে ২৫নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর মো: আলী আকবর টিপুর আয়োজনে মহানগরীর লায়ন্স স্কুল এন্ড কলেজ মাঠে চলছে কাউন্সিলর গোল্ডকাপ ক্রিকেট টুর্নামেন্ট। টুর্নামেন্টে গতকাল অনুষ্ঠিত খেলায় যশোর জায়ান্টস জয়ের মাধ্যমে কোয়ার্টার ফাইনালে খেলার যোগ্যতা অর্জন করেছে। বিকাল ৩.০০টায় দিনের একমাত্র খেলায় যশোর ৮ রানে ১৩ রানে নারায়নগঞ্জ ইউনাইটেডকে পরাজিত করে। যশোর দল নির্ধারিত ওভারে ১৪৯ রানে সবাই আউট হয়ে যায়। জবাবে নারায়ণগঞ্জ নির্ধারিত ১১.৫ ওভারে ১৪১ রানে অল-আউট হয়ে যায়। বিজয়ী দলের সোহাগ দুরন্ত এক ক্যাচ ধরার সুবাদে ম্যান অব দ্য ম্যাচ নির্বাচিত হয়। এদিকে গ্রুপ পর্বের খেলা শেষে আগামী ৯ এপ্রিল কোয়ার্টার ফাইনাল পর্বের দুটি খেলা অনুষ্ঠিত হবে। দুপুর ১.০০টায় প্রথম খেলায় অংশ নেবে রংপুর ভিক্টোরিয়া বনাম ফরিদপুর ওয়ারিয়ার। বিকাল ৩.১৫টায় দ্বিতীয় কোয়ার্টার ফাইনালে খেলবে নাটোর সুপার কিংস বনাম যশোর জায়ান্টস। গতকালের খেলা দেখতে মাঠে উপস্থিত ছিলেন টুর্নামেন্টের আয়োজক ওয়ার্ড কাউন্সিলর মো: আলী আকবর টিপু, মো: মাসুম, শিপার হায়দার, জাহিদ আমির পল্টু, সাইদুর রহমান, ডা: বেল্লাল, ফজলে রাব্বি, মো: আলমগীর হোসেন, হীরক, বাপ্পি, ইসমাত আরা হীরা, সৌমী প্রমুখ। এছাড়া বিপুল সংখ্যক মহিলা দর্শক খেলা দেখতে মাঠে উপস্থিত হন।

জাতীয় ও আন্তর্জাতিক ক্রীড়া দিবস উদযাপন

স্পোর্টস রিপোর্টার : জাতীয় ও আন্তর্জাতিক ক্রীড়া দিবস উদযাপন উপলক্ষে খুলনা জেলা ক্রীড়া সংস্থার আয়োজনে গতকাল বিভিন্ন কর্মসূচী পালন করা হয়। খুলনা জেলা ক্রীড়া সংস্থার(কেডিএস) সহযোগিতায় গতকাল সকাল ৯.৩০ খুলনা জেলা প্রশাসকের কার্যলয় থেকে এক বর্ণাঢ্য র‌্যালী অনুষ্ঠিত হয়। র‌্যালীটি নগরীর বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিণ শেষে জেলা স্টেডিয়ামে এসে শেষ হয়। একই দিন জেলা স্টেডিয়ামে বিকাল ৩.৩০ মিনিটে রূপসা ও শিবসা দলের মধ্যে প্রীতি বাস্কেটবল এবং বিকাল ৪.৩০ মিনিটে লাল ও সবুজ দলের মধ্যে প্রীতি ভলিবল প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হয়। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি থেকে বিজয়ীদের মাঝে পুরস্কার বিতরন করেন জেলা প্রশাসক ও জেলা ক্রীড়া সংস্থার সভাপতি নাজমুল আহসান। অনুষ্ঠানে আরো উপস্থিত ছিলেন এডিসি শিক্ষা মো: গিয়াস উদ্দিন, জেলা ক্রীড়া সংস্থার সহ-সভাপতি মুস্তাফিজুর রহমান, আজমল আহম্মেদ তপন, সাধারণ সম্পাদক কাজী শামীম আহসান, অতিরিক্ত সাধারন সম্পাদক হাজীমো: মোতালেব মিয়া, জিএম রেজাউল ইসলাম, শেখ হেমায়েত উল্লাহ, এসএম ইনামুল কবির মন্নু, ফরহাদ নেওয়াজ শিমু, মো: মোমতাজ আহম্মেদ তুহিন, এসএম মনোয়ার আলী মনু, ফয়সাল আহম্মেদ পপা, মোস্তাফিজুর রহমান ফিরু, মোল্লা খায়রুল ইসলাম, নাজমুস সাদাত সুমন, এবিএম কামরুজ্জামান, পারভীন রহমান, জেলা ক্রীড়া অফিসার মো: আলীমুজ্জামান, খুলনা অঞ্চলের মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা পরিচালক টিএম জাকির হোসেন সহ বিভিন্ন স্কুলের ক্রীড়া শিক্ষক, ক্রীড়া সংগঠক, কোচ ও খেলোয়াড়বৃন্দ।

এনইউবিটি খুলনার আন্ত : সেমিটার ক্রিকেট টুর্নামেন্ট

স্পোর্টস রিপোর্টার ঃ নর্দান ইউনিভার্সিটি অব বিজনেজ এন্ড টেকনোলজি খুলনার ব্যবসা প্রশাসন বিভাগের আন্তঃ সেমিটার ক্রিকেট টুর্নামেন্টে এনইউবিটি কিংস শিরোপা জয় করেছে। গতকাল সকালে বিভাগীয় কমিশনার মাঠে অনুষ্ঠিত ফাইনাল ম্যাচে  এনইউবিটি ৪ উইকেটে নর্দান ভিকটোরিয়ানকে হারিয়ে চ্যাম্পিয়ন হবার গৌরব অর্জন করে। খেলায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে পুরস্কার বিতারণ করেন বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার মো: আব্দুল রউফ। সে সময় তিনি পড়াশুনার পাশাপাশি শিক্ষার্থীদের খেলাধুলার প্রতি গুরুত্ব দিতে সকলের প্রতি আহবান জানান।  বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ব্যবসা প্রশাসন বিভাগের প্রধান এস.এম. মনিরুল ইসলাম, প্রক্টর ও কম্পিউটার সাইন্স এন্ড ইঞ্জিয়ারিং বিভাগের প্রধান মো: রবিউল ইসলাম, আইন বিভাগের কো-অর্ডিনেটর রাজিব হাসনাত শাকিল, ব্যবসা প্রশাসন বিভাগের সহকারী অধ্যাপক মাছুম মোরতুজা, স্পোর্টস ক্লাবের কনভেনর মির্জা আরিফুল রহমান, সিনিয়র সহকারী পরিচালক ড. মো: আলাউদ্দিনসহ বিশ্ববিদ্যালয়ের সকল শিক্ষক, কর্মকর্তা ও কর্মচারী। সিরিজ সেরা খেলোয়াড় নির্বাচিত হন এনইউবিটি কিংস-এর জুবায়ের। টুর্নামেন্টটির সার্বিক আয়োজনে স্পন্সর করেছে রিয়াদ এন্টার প্রাইজ ও ফাল্গুনী পরিবহন।

ফুটবলে শীর্ষে ব্রাজিল, বাংলাদেশ ১৯৩

স্পোর্টস রিপোর্টার : ফিফা র‌্যাঙ্কিংয়ে আর্জেন্টিনাকে সরিয়ে সেরা অবস্থানে উঠে এলো ব্রাজিল। গতকাল প্রকাশিত হয়েছে ফিফার সর্বশেষ র‌্যাঙ্কিং। এখানে দেখা গেছে, সেরা অবস্থান থেকে দুইয়ে নেমে গেছে আর্জেন্টিনা। আর দুই নম্বর অবস্থান থেকে শীর্ষে উঠে গেছে ব্রাজিল। এই সাত বছর পর র‌্যাঙ্কিংয়ে শীর্ষ অবস্থানে উঠলো ব্রাজিল। আর র‌্যাঙ্কিংয়ে বাংলাদেশের অবস্থানের কোনও পরিবর্তন হয়নি। আগের ১৯৩তম অবস্থান ধরে রেখেছে বাংলাদেশ। তবে, বাংলাদেশের পয়েন্ট বেড়েছে। তিন পয়েন্ট বেড়ে বাংলাদেশের বর্তমান পয়েন্ট ৬০। র‌্যাঙ্কিংয়ে ২০৬টি দেশের মধ্যে বাংলাদেশ ১৯৩তম। বাংলাদেশের পেছনে রয়েছে ১৩টি দেশ। ফিফা র‌্যাঙ্কিংয়ে প্রথম দশ দল ঃ ১. ব্রাজিল, ২. আর্জেন্টিনা, ৩. জার্মানি,
৪. চিলি, ৫. কলম্বিয়া, ৬. ফ্রান্স, ৭. বেলজিয়াম, ৮. পর্তুগাল, ৯. সুইজারল্যান্ড, ১০. স্পেন।

শিবচরের পদ্মাপাড়েই হবে অলিম্পিক ভিলেজ

স্পোর্টস রিপোর্টার : অলিম্পিক ভিলেজ হবে পদ্মাপাড়ে- প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার এ ঘোষণা অনেক আগের। এখন জানা গেছে শিবচরের পদ্মার পাড়ে নির্মাণ করা হবে এ ভিলেজ। জাতীয় ক্রীড়া পরিষদের সচিব অশোক কুমার বিশ্বাস বলেছেন, ‘শিবচরের পদ্মাপাড়ে ১২০০ একর জায়গা নির্ধারণ করা হয়েছে। পুরো জায়গাটা জাতীয় ক্রীড়া পরিষদের মালিকানায় আসলেই শুরু হবে অলিম্পিক ভিলেজ নির্মাণের প্রক্রিয়া।’

  Article "tagged" as:
  Categories:
write a comment

0 Comments

No Comments Yet!

You can be the one to start a conversation.

Add a Comment

Your data will be safe! Your e-mail address will not be published. Also other data will not be shared with third person.
All fields are required.