বাংলাদেশ-ভারতের বন্ধুপ্রতীম সম্পর্ক চিরকাল অব্যাহত থাকবে

বাংলাদেশ-ভারতের বন্ধুপ্রতীম সম্পর্ক চিরকাল অব্যাহত থাকবে
February 21 14:35 2017

নড়াইল : বাংলাদেশে নিযুক্ত ভারতীয় হাইকমিশনার শ্রী হর্ষবর্ধন শ্রীংলা বলেছেন, ভারত-বাংলাদেশের বন্ধুপ্রতীম সম্পর্ক চিরকাল অব্যাহত থাকবে। আজ বুধবার দুপুরে নড়াইল রামকৃষ্ণ আশ্রম ও মিশনের সীমানা প্রাচীরের ভিত্তি প্রস্তরের উদ্বোধনকালে বক্তব্যে এ কথা বলেন তিনি।

শ্রীংলা বলেন, ১৯৭১ সালে বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের সময় ভারত পাশে থেকে সর্বাত্মক সহযোগিতা প্রদান করেছিল। ভারতের সেদিনকার প্রধানমন্ত্রী ইন্দিরা গান্ধী বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের পাশে থেকে মুক্তিকামী মানুষের মাঝে শক্তির যে বীজবপন করেছিলেন তারই ধারাবাহিকতায় ভারতের বর্তমান প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি ও বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বন্ধুপ্রতীম সম্পর্ককে নতুন উচ্চতায় পৌঁছে দিয়েছে।

তিনি নড়াইল সরকারি ভিক্টোরিয়া কলেজের জন্য ভারতীয় অনুদানে নির্মিত ভারত-বাংলাদেশ মৈত্রী ছাত্রী হোস্টেল পরিদর্শন করেন। এর আগে তিনি নড়াইল সদর উপজেলার তুলারামপুরে ভারতের রাষ্ট্রপতি প্রণব মূখার্জীর স্ত্রী শুভ্রা মূখার্জীর নামে প্রতিষ্ঠিত শুভ্রা মূখার্জী ফাউন্ডেশন পরিদর্শন করেন এবং সেখানে তিনি ল্যাপটপ ও কম্পিউটার প্রদান করেন।

ভারতের পশ্চিমবঙ্গের রামকৃষ্ণ মঠ ও রামকৃষ্ণ মিশন, বেলুরমঠের সহ-সাধারণ সম্পাদক ও ট্রাস্টি শ্রীমৎ স্বামী বোধসরানন্দজী মহারাজের সভাপতিত্বে নড়াইল রামকৃষ্ণ আশ্রম ও মিশন চত্বরে উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে আলোচনা সভায় অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য দেন রামকৃষ্ণ মঠ ও মিশন,ঢাকার অধ্যক্ষ স্বামী ধ্রুবেশানন্দজী মহারাজ, জেলা প্রশাসক হেলাল মাহমুদ শরীফ, জেলা পরিষদ প্রশাসক অ্যাডভোকেট সুবাস চন্দ্র বোস, পুলিশ সুপার সরদার রকিবুল ইসলাম, নড়াইল রামকৃষ্ণ আশ্রম ও মিশনের অধ্যক্ষ স্বামী জ্ঞানপ্রকাশানন্দ।

অনুষ্ঠানে নড়াইল রামকৃষ্ণ আশ্রম ও মিশনের সদস্যসহ বিভিন্ন শ্রেনী পেশার মানুষ উপস্থিত ছিলেন।

ভারত সরকারের সহায়তায় ৭৬ লাখ টাকা ব্যয়ে নড়াইল রামকৃষ্ণ আশ্রম ও মিশনের সীমানা প্রাচীর নির্মাণ করা হচ্ছে বলে হাইকমিশনার তার বক্তব্যে উল্লেখ করেন।

  Categories:
write a comment

0 Comments

No Comments Yet!

You can be the one to start a conversation.

Add a Comment

Your data will be safe! Your e-mail address will not be published. Also other data will not be shared with third person.
All fields are required.